মাইক্রোসফট ওয়ার্ড [পর্ব-০১] :: বেসিক লেভেল

0
30

আসসালামুআলাইকুম। ফ্রী টিউন্স ২৪ ডট কম এ আপনাকে স্বাগতম। কেমন আছেন বন্ধুরা ..? আশা করি ভালো আছেন। আমিও আপনাদের দোয়ায় ভালোই আছি। আজ থেকে শুরু করছি মাইক্রোসফট ওয়ার্ড নিয়ে বাংলা পোস্ট পর্ব নং-০১ । একদম বেসিক লেভেল থেকে শুরু করছি। আশা করি সবাই উপকৃত হবেন । তো চলুন আর কথা না বাড়িয়ে শুরু করি।


প্রথমেই সকলের মনে প্রশ্ন জাগেতে পারে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড কি ?

উত্তরঃ মাইক্রোসফট ওয়ার্ড হচ্ছে এমন একটি ওয়ার্ড প্রসেসিং সফটওয়ার। যার সাহায্যে আমরা দলিল,  প্রশ্ন, চিঠিপত্র টাইপ করা ছাড়াও প্রিন্ট দেওয়া, ছোটখাট ডিজাইন করা, বই তৈরি করাসহ বিভিন্ন টাইপিং এর কাজ করা হয়। অত্যন্ত সহজ এই প্রোগ্রামটি তাই এটি বিশ্বে প্রচলিত আছে। এটির ইন্টারফেস খুবই সহজ হওয়ার কারনে সামান্য কম্পিউটার জানা যে কোন ব্যক্তি তার প্রয়োজন অনুসারে কম্পিউটারে লেখালিখির কাজ সম্পাদন বা সংরক্ষণ করতে পারে ।

মাইক্রোসফট ওয়ার্ডের দ্বারা আমরা যে সব কাজ করতে পারব ঃ-

১. আমরা দলিল তৈরি করতে পরবো

২.প্রশ্ন তৈরি করতে পারবো

৩. চিঠি পত্র টাইপ করতে পারবো

৪. সকল ধরনের টাইপিং এর কাজ করতে পারবো

তো চলুন শুরু করা যাক আজকের পর্ব

 

মাইক্রোসফট ওয়ার্ড এর বেসিক ধারণাঃ-

  •  কিভাবে Ms Word 2007 অপেন করবেন ..?

প্রথমেই Start বাটনে ক্লিক করুন। তারপর All Programs এ ক্লিক করুন। তারপর Microsoft Office এ ক্লিক করুন। তারপর Microsoft Office Word 2007-এ প্রবেশ করুন। নিচের ছবির মতো।

Ms Word 2007

 

এরপর ডিফল্টভাবে একটি সাদা পেজ আমাদের সামনে ওপেন হবে। নিচের ছবির মতো।

 

এমএস ওয়ার্ড ২০০৭

 

Ms Word 2007 অপেন হবার পর নিচের ছবিতে দেখুন।

এমএস ওয়ার্ড ২০০৭

 

আমাদের স্ক্রিনে সাদা পেইজে একটি দাগ নিভ নিভ করছে, এই নিভ নিভ দাগ কে বলা হয় কার্সর। এই কার্সর যেখানে থাকবে Keybord দিয়ে কোন অক্ষরে চাপ দিলে লেখাটা সেখান থেকেই শুরু হবে।

নিচের লাইনে যাওয়া পদ্ধতিঃ-

আমরা যা কিছু লিখি, লেখা শেষ হলে কার্সর নিজে থেকেই নিচের লাইনে চলে যাবে। এই ভাবে লেখাকে বলে প্যারা করে লেখা। কিন্তু আপনার যদি কখনো এক লাইন লিখেই পরের লাইনে যাওয়ার প্রয়োজন পরে তাহলে Keybord থেকে  Enter বাটন চাপ দিতে হবে।

মাউস পয়েন্টা ও কার্সরঃ-

আমরা আমাদের মাউস নাড়ালে যে তীর চিহ্নিত মতো আইকনটি নড়াচড়া করে তাকে মাউস পয়েন্টার বলে । আর মাউস পয়েন্টার দিয়ে ডকুমেন্ট লিখার সময় যে একটি দাগ জ্বলে এবং নিভে তাকে বলে কার্সর। কার্সর ডকুমেন্ট যে স্থানে অবস্থান করবে সেখান থেকে লেখা শুরু হবে।

কার্সর বা মাউস

 

আজ এ পর্যন্তই । আজ আর লিখতে মন চাইছে না । সবাইকে আগামী পর্বের শুভেচ্ছা জানিয়ে আজকের মতো এখানেই শেষ করছি । আল্লাহ্ হাফেজ ।

ধন্যবাদ সবাইকে ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here