আসল ও নকল মেমোরি কার্ড চেনার উপায়

0
77

আসসালামু আলাইকুম । ফ্রি টিউন্স ২৪ ডট কম এর পক্ষ থেকে সবাইকে স্বাগতম । নকল মেমোরি কার্ড বাজার ছেয়ে গেছে । এখন ৩০০ টাকা থেকে ৪০০ টাকা হলেই আপনি ১৬ জিবি মেমোরি কার্ড কিনতে পারেন । কিন্তু মেমোরি কার্ড কতটা আপনার ফোনে ভালো কাজ করবে ? কতটা আপনার জন্য নিরাপদ আপনার ডাটা সংরক্ষণের জন্য ? সেই প্রসঙ্গে বিস্তারিতভাবে আজকে এই টিউন্সে আলোচনা করবো ।

Original Memory Card
Original Memory Card

নকল মেমোরি কার্ড কিভাবে আপনি চিনতে পারবেন । মেমোরি কার্ড আমাদের কাছে খুবই গুরুত্বপুর্ন জিনিস ।আর সেই মেমোরি কার্ড যদি স্লো কাজ করে তাহলে আপনার ফোনও স্লো কাজ করবে । আপনি যত টাকা দিয়ে ফোন কেনে না কেন ? এটা কম দামি এবং এটা নকল হওয়ার কারণে বিভিন্ন সমস্যায় আপনি পরতে পারেন ।হয় তো আপনার ডাটা আপনার কাছে অনেক গুরুত্বপূর্ণ । সেই ডাটাবেজ নস্ট হয়ে যেতে পারে । অতএব এই সম্পর্কে আমাদের সবার জানা উচিত । নকল মেমোরি কার্ড আপনি কিভাবে চিহ্নিত করবেন এবং সেগুলো থেকে দূরে থাকবেন ।

মেমোরি কার্ড চেনার উপায়

  • প্যাকেট ছাড়া কখনোই মেমোরি কার্ড কিনবেন না । যে সব খোলা মেমোরি কার্ড বাজারে পাওয়া যাচ্ছে, রাস্তা ঘাটে, ফুটপাতে খোলা ভাবে বিক্রি করছেন । সেই মেমোরি কার্ড গুলো কখনো-ই আপনারা কিনবেন না । ভালো মেমোরি কার্ড অবশ্যই একটা সুন্দর প্যাকেটে থাকবে এবং একই সাথে প্যাকেটের মধ্যে মেমোরি কার্ডের পাশাপাশি অ্যাডাপ্টার থাকবে যেটা দিয়ে আপনি মেমোরি কার্ডটা আপনার ডিভাইসে বা আপনার কম্পিউটারের সাথে কানেক্ট করতে পারবেন । সেজন্য অবশ্যই Open কোন মেমোরি কার্ড কিনবেন না । সবসময় প্যাকেট করা যে মেমোরি কার্ড থাকে সেগুলোই কিনবেন ।
  • আপনার মেমোরি কার্ডের সাথে যে এডাপ্টার রয়েছে । আমি স্যামসাং মেমোরি কার্ড এর কথা যদি বলে থাকি ।সেই স্যামসাং মেমোরি কার্ডের সাথে যে এডাপ্টার রয়েছে সেই এডাপ্টার কোয়ালিটিটা একটু খেয়াল করবেন । সেই এডাপ্টার কোয়ালিটির কিন্তু এক বছরের ওয়ারেন্টি থাকে । একই সাথে তার গায়ে লেখা থাকে খোদাই করে স্যামসাং । কখনোই কোনো কালি দিয়ে লেখা থাকে না । স্যামসাং এখানে খোদাই করে লেখা থাকবে ।
  • এই মেমোরি কার্ড যে প্যাকেটের মধ্যে থাকবে, তার উপর দিকে একটা হোল থাকবে । যেটা দিয়ে যেকোনো পিনের সাথে আটকে রাখা যায় । কিন্তু আপনি যদি কোন নকল মেমোরি কার্ড কিনে থাকেন, তাহলে দেখবেন তার উপরে কোন হোল বা ছিদ্র নেই ।
  • আসল মেমোরি কার্ডের চার সাইডের যে ধার বা চারপাশের রং থাকবে সাদা । আমি যদি স্যামসাং মেমোরির কথা বলি তাহলে এই মেমোরির চারপাশটা সাদা থাকবে । আর আপনি যদি নকল মেমোরি কার্ড কিনেন তবে সেই ক্ষেতে মেমোরির চারপাশটা সাদা পাবেন না । সেখানে পাবেন একটু কালো বা ধুসর বর্নের ।কারন হচ্ছে মেমোরি কার্ড প্রস্তুত করার পর এর সাইড গুলো সাদা করার জন্য আলাদা করে ট্রিটমেন করতে হয় । এর জন্য যারা নকল কার্ড তৈরি করে থাকে তারা আসলে এটা দিতে পারে না ।
  • আসল মেমোরি কার্ড গুলো কিন্তু একদম স্পস্ট লেখা থাকবে । আপনি যদি কোন স্যামসাং মেমোরি কার্ডের কথা বলেন তবে সেটাতে অবশ্যই স্পস্ট লেখা থাকতে হবে । একই সাথে সেই লেখাটা থাকবে ডিরেক্ট মেমোরিতে লেখা কোন পাতলা কোন আবরনের উপর না । ডিরেক্ট মেমোরিতে লেখা থাকবে ।এর জন্যই লেখাটা দেখবেন চকচক করবে । আর আপনি যদি নকল মেমোরি কার্ড কিনেন তবে সেটার লেখাটা অস্পস্ট থাকবে এবং কোনন কাগজের প্রলেপের উপর ধূসর বা ঝাপসা হয়ে থাকবে ।
  • মেমোরি কার্ডের উপর তৈরির কান্ট্রিটা ভালো করে দেখে নিবেন । কেননা আসল মেমোরি কার্ড উপর লেখা থাকবে  Made in Philippine. এই লেখাটা দেখলে বুঝবেন এটা অরিজিনাল মেমোরি কার্ড । কারণ স্যামসাং মেমোরি কার্ডটি তৈরি হয় Philippine দেশে ।
  • স্টোরেজ সাইজটা দেখলেও আপনি বুঝতে পারবেন যে আপনার ক্রয়কৃত মেমোরি আসল কিনা নকল । কেননা একটা ১৬ জিবি মেমোরিতে ডাটা স্টোরেজ থাকবে সর্বচ্চো ১৪.০০-১৪.৭ জিবি । এখন আপনার মেমোরি যদি ১২ অথবা ১৬ অথবা ১৫ জিবি হয় তবে এটা নকল মেমোরি কার্ড । কেননা মেমোরির সিস্টেম অনুযায়ী ১৬ জিবি তে কম পক্ষে ১.৫ জিবি unlocated থাকে বা পাওয়া যায় না ।
  • দামের উপরেরও আপনি ধরতে পারবেন যে আপনার মেমোরি নকল কি না আসল । কেননা এখনও বাজারে আসল মেমোরির দাম BDT. 400, 450, অথবা 500 টাকা ।আর নকল মেমোরি কার্ড ১৫০ টাকাতে দোকানে বিক্রি করতে দেখা যায় । এখন বলেন কেউ কি এতো টাকা লস দিয়ে মেমোরি বিক্রি করবে ।

যে ৩টি ভুলে আপনার মেমোরি কার্ডটি নষ্ট হতে পারে জেনে নিন

তো এই ছিলো আমাদের আজকের টিউন্স । ফেসবুকে আমাকে পেতে এখানে ক্লিক করুন । ভালো থাকবেন সবাই ।সেই কামনায় শেষ করছি আজকের টিউন্সটি । “আল্লাহ্ হাফেজ”

ধন্যবাদ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here